অনেকেই ঝাল খাবার একেবারে খেতে পারেন না, আবার অনেকের ঝাল খাবার ছাড়া খাওয়াই চলে না। একেকজন মানুষের মুখের স্বাদ একেক ধরণের হয়ে থাকে এটিই স্বাভাবিক। যারা অনেক বেশি ঝাল খাবার খান তাদের ঝাল খাওয়া দেখে হয়তো যারা ঝাল খান না তারা বেশ অবাকই হন। কিন্তু সত্যি বলতে কি যারা ঝাল বেশি খান তারাই কিন্তু বেশ লাভবান। ভাবছেন কী কারণে? তাহলে জেনে রাখুন, ঝাল খাবার স্বাস্থ্যের জন্য বেশ ভালো। শুনতে অবাক লাগলেও যারা একটু বেশি ঝাল খাবার খান তারা কিছু কিছু সমস্যা থেকে আপানাআপনি রেহাই পেয়ে যান।

১) ওজন কমায় ঝাল খাবার
ওজন কমানোর জন্য যারপরনাই চেষ্টা করে যাচ্ছেন? তাহলে এক কাজ করুন খাদ্য তালিকায় রাখুন একটু বেশু ঝাল খাবার। কারণ গবেষণায় দেখা গিয়েছে মরিচ যা ঝাল খাবারের মূল উৎস তাতে রয়েছে ক্যাপসেইসিন নামক যৌগ যা দেহে থার্মোজেনিক ইফেক্টের জন্য দায়ী। এই থার্মোজেনিক ইফেক্ট দেহের ক্যালরি ক্ষয় করতে বিশেষভাবে সহায়ক।
২) ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
গবেষণায় দেখা যায় মরিচ ও ঝাল খাবারের যৌগ ক্যাপসেইসিনের রয়েছে দেহের ক্যান্সারের কোষ ধ্বংস করার জাদুকরী ক্ষমতা। এছাড়াও এর আরও রয়েছে সাধারণ সর্দি কাশি ও স্ট্রোক প্রতিরোধের ক্ষমতা।

৩) হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখে
ঝাল খাবার কার্ডিওভ্যস্কুলার সমস্যা দূরে রাখতে সহায়তা করে থাকে। ঝাল খাবার দেহের খারাপ কলেস্টোরল দূর করতে সহায়তা করে, এতে করে হৃদপিণ্ড সুস্থ থাকে। এছাড়াও ক্যাপসেইসিনের রয়েছে অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান, যা প্রদাহ বন্ধ করতেও সহায়তা করে।

৪) উচ্চ রক্তচাপ কমায়
গবেষণায় দেখা যায় ঝাল খাবার এবং ঝাল মরিচ রক্তের শিরা উপশিরা নমনীয় করতে সহায়তা করে এবং উচ্চ রক্তচাপের ঝামেলা কমিয়ে দেয়।

৫) রাগ নিয়ন্ত্রণে রাখে
যারা একেবারেই রাগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পারেন তারা ঝাল খাবার খেয়ে রাগ দূর করার চেষ্টা করতে পারেন। গবেষণায় দেখা যায় ঝাল খাবার আমাদের দেহে সেরেটেনিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় যাতে করে ভালোলাগা উৎপন্ন হয় মস্তিষ্কে। এতে করে রাগও দূর হয়ে যায় খানিক পরেই।

আদার জুসের বিস্ময়কর উপকারিতা !!

আমরা সাধারনত আদা রান্নায় মশলা হিসেবে ব্যবহার করে থাকি। এছাড়াও আদা আমরা অনেকে কাঁচাও খেয়ে থাকি।

আদাতে আছে শারীরিক ক্রিয়াকালাপ ঠিক রাখার জন্য অপরিহার্য ভিটামিন, ম্যাঙ্গানিজ ও তামা। এছাড়াও এতে আরও রয়েছে জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম ও ফসফরাসের মতো খনিজ পদার্থ। আর এই আদা দিয়ে তৈরি জুস আমাদের জন্য কতটা উপকারি তা হয়তবা আমাদের অনেকরই অজানা। এখন আপনাদের জন্য আদার জুস তৈরির পদ্ধতি এবং এর উপকারিতা সম্পর্কে নিম্নে দেয়া হল:
আদার জুস তৈরির পদ্ধতি:
আদাকে ছোটো ছোটো কিউব বা ফালি করতে হবে। এরপর এতে কিছু পানি যোগ করতে হবে এবং এটা ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করতে হবে। ব্লেন্ড শেষ হলেই তৈরি হয়ে যাবে আদার জুস এবং আপনি এটি খুব সহজেই পান করতে পারবেন। যদি এই জুস পান করতে কঠিন হয়ে যাই সেক্ষেত্রে আপনি এই জুসের সাথে সামান্য পরিমানে চিনি মেশাতে পারেন।

আদার জুসের উপকারিতা:
*আদা ক্যান্সার প্রতিরোধ এবং ক্যান্সার সৃষ্টিকারী সেল ধ্বংস করতে অনন্য ভূমিকা পালন করে। একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, আদা স্তন ক্যান্সারের সেলের বৃদ্ধি কমাতে সাহায্য করে।

*আদা অবিলম্বে মানুষের রক্ত তরল এবং রক্তের চাপ কমাতে সাহায্য করে। আপনি আদার জুসের সাথে মধু মেশাতে পারেন এটাকে সুস্বাদ করার জন্য।

*আদা বিভিন্ন রকমের ব্যাথা নিরাময় করতে সাহায্য করে এবং মায়গ্রেনসের ব্যাথা প্রতিরোধ করতেও সহায়তা করে।

*আদা হজমের জন্য সক্রিয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে। আদার জুস বা রস বিভিন্ন হজম সংক্রান্ত সমস্যার সমাধানে সাহায্য করে থাকে। ইহা পাকস্থলী থেকে খাদ্য প্রক্রিয়া সচল রাখতে সহায়তা করে।

*আরথ্রাইটিস এর মতো রোগের ক্ষেত্রেও ব্যাথানাশক হিসেবে কাজ করে আদার জুস বা রস।

*আদা শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাতে সাহায্য করে। ইহা খারাপ কোলেস্টেরল কমায়।

*আদার রস বা জুস শরীরকে শীতল করে।

*আপনি যদি লম্বা এবং উজ্জ্বল চুল পেতে চান তাহলে আপনাকে প্রতিদিন আদার রস পান করা উচিত। আপনি ভালো ফলাফলের জন্য ইহা মাথার ত্বকেও প্রয়োগ করতে পারেন। আদা আপনার চুলের জন্য ভালো কন্ডিশনার হিসেবেও কাজ করে। এছাড়াও ইহা খুশকি কমাতে সাহায্য করে এবং চুল দ্রুত বৃদ্ধি করে।

*আদার রস বা জুস ব্রন কমাতে সাহায্য করে এবং ভবিষ্যতে ব্রন উঠা প্রতিরোধ করে।
সুতরং পরিশেষে বলা যায়, আদার জুসের রয়েছে অসাধারণ নিরাময় ক্ষমতা এবং অনেক উপকারিতা।

Comments

comments